নরসিংদীর রায়পুরায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকা কেজি দরের একটন চাল কালোবাজারে বিক্রির দায়ে এক ইউপি সদস্য ও তার স্ত্রী চালের ডিলারকে আটক করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার চরআড়ালিয়া ইউনিয়নের বটতলী গ্রাম থেকে এ দমম্পতিকে আটকের পর থানায় দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্রিকৃত ওই একটন চাল উদ্বার করা যায়নি।

আটককৃতরা হলেন, উপজেলার চরআড়ালিয়া ইউপি সদস্য মো. বাচ্চু মিয়া ও তার স্ত্রী চালের ডিলার সোফিয়া বেগম। তারা বটতলী গ্রামের বাসিন্দা। এই দুজনের বিরুদ্ধে রায়পুরা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান পুলিশ। সোমবার পর্যন্ত এনিয়ে দুই ডিলারসহ চারজনকে আটক ও একজনের ডিলারশিপ বাতিল ও অর্থদন্ত দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ ব্যাপারে ইউএনও মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, চরআড়ালিয়া ইউনিয়নের চালের ডিলার সোফিয়া বেগম তার স্বামী ইউপি সদস্য মো. বাচ্চু মিয়ার সহযোগিতায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির একটন চাল হতদরিদ্রদের মাঝে বিতরণ না করে কালোবাজারে বিক্রি করে দেন। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে লোক পাঠিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বিক্রিকৃত চালের বস্তাগুলো উদ্ধার করা যায়নি। আটককৃত ইউপি সদস্য ও ডিলারে বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

এ নিয়ে গেল বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) উপজেলার মরজাল ইউনিয়নের চালের ডিলার ও সাবেক ইউনিয়ন আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল ইসলাম মিস্টারকে ভ্রাম্যমাণ আদালত দেড় লাখ টাকা জরিমানা ও তার ডিলারশিপ বাতিল করেন। অপরদিকে একই অপরাধে গতকাল রবিবার (১২ এপ্রিল) আটক হন উত্তরবাখরনগর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও অনুমোদিত ডিলার মো. রফিকুল ইসলাম। এ ঘটনায় রফিকুলের বিরুদ্ধে থানায় মামলাসহ দলীয় পদ ও দল থেকেও সাময়িক বহিষ্কার হন।

সূত্র জানায়, রায়পুরা উপজেলায় হতদরিদ্র কার্ডধারীর সংখ্যা ১৮ হাজার ১৪৫ জন। একজন ভোক্তভোগী বছরে পাঁচবার ১০ টাকা দরে ৩০ কেজি করে চাল পেয়ে থাকেন। হতদরিদ্রদের সুবিদার্থে প্রতি ইউনিয়নে দুইজন করে উপজেলার ২৪টি ইউনিয়নে মনোনীত ৪৮ জন ডিলার আছেন।