নো এন্ট্রি, বিবি নাম্বার ওয়ান, রেস থ্রি ও যুবরাজ সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেছেন অনিল কাপুর ও সালমান খান। তাদের মাঝে সম্পর্কও বেশ ভালো। এই সব দেখে কে বলবে এক সময় অনিলকে মারতে গিয়েছিলেন সালমান! তাও আবার প্রেমিকাকে ভাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগে।

তখন সালমান অভিনয় শুরু করেননি। ইন্ডাস্ট্রিতে টুকটাক অন্য কাজ করছেন। আর বিভিন্ন জায়গায় অডিশন দিচ্ছেন। সে সময় অনিল কাপুর ‘হামলা’ নামে একটি ছবি বানাবেন বলে ঠিক করলেন।

ছবির শুটিং হয় ১৯৮৭ সালে, মুক্তি পায় ১৯৯২ সালে। এই ছবির ইউনিটে একজন তরুণী সহকারীর সঙ্গে নাকি অনিল বেশ ফ্লার্ট করতেন। অবস্থা এতটাই গুরুতর হয় যে, ওই তরুণী অস্বস্তিতে পড়তেন। শেষ অবধি কোনো লাভ না হওয়ায় অনিল কুৎসা রটানোর হুমকি দেন।

এই তরুণী ছিলেন শাহিন, যিনি দীলিপ কুমারের স্ত্রী অভিনেত্রী সায়রা বানুর ভাইজি। শাহিনের কলেজের সামনে সালমান ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতেন। তিনি ভাইজানকে সমস্যার কথা খুলে বলেন।

সালমানকে তো তখন কেউ চেনেন না। কিন্তু তিনি চুপ করে বসে থাকার পাত্র নন। বান্ধবীর সঙ্গে তিনি সোজা চলে গেলেন ‘হামলা’র সেটে। সেখানে সবার সামনে সরসারি কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন অনিলকে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, সালমান নাকি ঘুষি মারতেও যাচ্ছিলেন। কিন্তু সেটে হাজির লোকজন তাকে নিরস্ত করেন। ঘটনাটি সংবাদমাধ্যমে এলে সালমান ঝামেলার ঘটনাটি অস্বীকার করেন। তবে অনিল যে শাহিনের সঙ্গে অভব্য আচরণ করেছিলেন, সে দাবি থেকে সালমান সরেননি।