বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যুর সংখ্যা সরকারিভাবে না বাড়লেও আক্রান্তের সংখ্যা দিগুন হয়েছে। বুধবার আক্রান্ত ছিলেন ৫৪ জন। একদিন পর বৃহস্পতিবার তা বেড়ে দিগুন হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। নতুন করে ১১২ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৩৩০ জন।

মারা গেছেন ২১ জন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে আইসোলেশন বেডের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। বসুন্ধরা কনভেশন সিটিতে দুই হাজার বেড, ঢাকা উত্তর সিটির একটি মার্কেটে এক হাজার চারশো বেড, এবং উত্তরার দিয়াবাড়িতে এক হাজার দুইশো বেডসহ মোট পাঁচ হাজার ছয়শো বেডের আইসোলেশন ইউনিট যুক্ত হচ্ছে। আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, গত ২৪ ঘন্টায় যে ১১২ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন এর মধ্যে ৬২ জনই ঢাকার।

বরগুনার একজন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বলা হয়েছে, পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত ক্লাশ ও পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্ধারিত ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকা শেষ হয়েছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত বেগম জিয়া কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।

বৃহস্পতিবার রাতে সারা দেশে পালিত হবে পবিত্র শবে বরাত। ইসলামিক ফাউন্ডেশন বলেছে, মুসল্লিদেরকে বাড়িতে থেকেই ইবাদত বন্দেগী করতে হবে। এর আগে মসজিদে না যাওয়ার জন্য নির্দেশনা জারি করা হয়। রাজশাহী কারাগার থেকে পাঁচশো বন্দীকে ছেড়ে দেবার সিধান্ত হয়েছে। এই কারাগারে এখন বন্দী রয়েছেন তিন হাজার চারশো। অথচ বন্দী ধারণ ক্ষমতা মাত্র ১৪৫০ জনের।

ওদিকে করোনা ভাইরাসের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় প্রথমবারের মত জার্মানির নাগরিকরা আগামীকাল ঢাকা ছাড়ছেন। জার্মান সরকার তাদের নাগরিকদের জন্য বিশেষ বিমান পাঠাচ্ছে। এছাড়া আগামী সোমবার কাতার এয়ারওয়েজের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তৃতীয় দফায় দেশে ফিরে যাবেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা।

করোনা ভাইরাসের কারনে  নারায়ণগঞ্জকে  ‘এপিসেন্টার’ মনে করছে আইইডিসিআর

করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর এক মাস পরে এসে বাংলাদেশে কোভিড-১৯ ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে।

কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে না পারলে এ ভাইরাস নিয়ে বাংলাদেশকে বিপদজনক পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ পরিস্থিতিতে দেশে লকডাউন আরো কঠোর করা এবং সাধারণ ছুটি বাড়ানোরও প্রয়োজনীয়তা তৈরি হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের একমাসের মাথায় পর পর কয়েকদিন টানা উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষের দেহে এ ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার একদিনে সহস্রাধিক মানুষকে পরীক্ষা করে ১১২ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত সপ্তাহের ৬ দিনে ২৬৯ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন বাংলাদেশে।

এ পর্যায়ে সংক্রমণ ঢাকাসহ দেশের অন্তত ২১টি জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানাচ্ছে রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট আইইডিসিআর। এছাড়া চারটি জেলায় একাধিক ক্লাস্টারে কমিউনিটি সংক্রমণ রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি কমিউনিটি সংক্রমণ হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলায়।