মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:
মুন্সীগঞ্জের পাচটি উপজেলায় দশজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়েছে।

এর মধ্যে সদর উপজেলায় একজন, টংগিবাড়ী উপজেলায় চারজন, শ্রীনগর উপজেলায় একজন, সিরাজদিখান উপজেলায় একজন, গজারিয়া উপজেলায় তিনজন আছেন বলে শনিবার বেলা ১২টায় সিভিল সার্জন মোঃ আবুল কালাম আজাদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এই ঘটনায় ৩টি গ্রাম ও ৬০টির মতো বাড়ি ও কোয়াটার লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

জানা যায়, আক্রান্তদের গ্রামসহ আশেপাশের বাড়ি লকডাউন করেছেন উপজেলা প্রশাসন। সদর উপজেলার পানাম গ্রামের ২০টি বাড়ি লকডাউন ও একটি দোকান লকডাউন করেছেন ইউএনও ফারুক আহম্মেদ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা জানান, গজারিয়া উপজেলায় একটি গ্রাম ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের কোয়াটার লকডাউন করা হয়েছে। টংগিবাড়ি উপজেলার ৩৪টি বাড়ি লকডাউন হয়েছে। সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলার আক্রান্ত ব্যক্তির একটি গ্রাম লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে।

এদিকে, আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে একজন কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে, তিনজন ঢাকার হাসপাতালে ও একজন স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে আছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা। গতকাল মধ্যরাত আক্রান্তদের নিজ বাড়িসহ গ্রাম লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্মান তালুকদার জানান, আইইডিসিআর’এর সাথে যোগাযোগ করছি।

যারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত তাদেরকে ঢাকায় প্রেরণ করা হবে। আক্রান্ত সাথে যারা সংস্পর্শে এসেছে তাদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই লকডাউনের কার্যক্রমগুলো জেলায় চলছে বলে দাবী করেন তিনি।

জানা যায়, ৭ এপ্রিল পরীক্ষার জন্য ১৬ জনের সোয়াব সংগ্রহ করে ৮ এপ্রিল ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। গতকাল মধ্য রাতে ও সকালে মিলে ১০ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।