করোনাভাইরাসে প্রতিমুহূর্তে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা।
এ মহামারীর কারণে বিশ্ববাসী আজ ঘরবন্দি। চারদিক সুনসান নীরবতা, জনশূন্য। পৃথিবী আজ এক মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের পরিসংখ্যান জানানো আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৭ হাজার ৩৭১ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে, যা এ যাবৎ একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। খবর রয়টার্স ও বিবিসির।

করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৬৯১ জনে। এর মধ্যে ৩ লাখ ২ হাজার ১৫০ মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

এ ছাড়া বিশ্বজুড়ে বর্তমানে ১০ লাখ ৪৭ হাজার ৪৬৩ জন আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন। এদের মধ্যে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ২২৮ জনের অবস্থা সাধারণ। ৪৭ হাজার ৮৯৮ জনের অবস্থা গুরুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিইউতে রয়েছেন।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত ইতালি। ইতালিতে মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত সেখানে মারা গেছেন ১৭ হাজার ১২৭ জন। স্পেনে মৃত্যুর সংখ্যা ১৪ হাজার ৪৫ জন।

যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু হয়েছে ১২ হাজার ৮৫৪ জনের। চীনে ৩ হাজার ৩৩৩ জন। ফ্রান্সে ১০ হাজার ৩২৮ জন। ইরানে ৩ হাজার ৮৭২ জন। যুক্তরাজ্যে মৃত্যুর সংখ্যা ৬ হাজার ১৫৯ জনে দাঁড়িয়েছে।

সাধারনত এ রোগের কিছু উপসর্গ আছে যেমন জ্বর, গলাব্যথা, শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট, শ্বাসকষ্টের সঙ্গে কাশি দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। জনসমগম এড়িয়ে চলাই ভালো।

বাংলাদেশেও বাড়ছে এ রোগে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১৬৪ জন এবং মারা গেছেন ১৭ জন।

বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে না যাওয়াই ভালো। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এবং খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে। এছাড়া আপরিচিত কারো সাথে কথা না বলা বা তার সাথে সাক্ষাত না করাই উচিত। আমরা সকল সময় করোনার বেপারে সচেতন থাকি করোনা মুক্ত দেশ গড়ার চেষ্টা করি।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে ১৯৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এ নিয়ে দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৮৫৪ জন। এর মধ্যে নিউইয়র্কেই মারা গেছে সবচেয়ে বেশি।